পিরোজপুরে ৭ সংবাদকর্মীর বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা

পিরোজপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে ৭ সংবাদকর্মীর বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় জেলার সংবাদকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, গত মঙ্গলবার (০৬ডিসেম্বর) জেলার ইন্দুরকানী উপজেলার বালিপাড়া ইউনিয়ন আ’লীগের দলীয় কার্যালয়ে বোমা হামলার অভিযোগ করে ওই ইউনিয়ন শ্রমিকলীগের সভাপতি আবুল বাশার ওরফে বাদশা বাদী হয়ে ওই রাতে মামলাটি দায়ের করেন। দায়ের হওয়া ওই মামলায় ৭৫ জনকে নামীয় এবং আরো ৫০-৬০ জনকে অজ্ঞাত করে আসামী করা হয়। ওই মামলায় উপজেলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আহসানুল হক ছগির , আলমগীর কবির মান্নু, সাবেক সাধারন সম্পাদক নাসির উদ্দিন , বর্তমান কমিটির সহসভপতি মো. শাহিদুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মো. আল আমিন হোসেন, কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য রাজু সিকদার, সাদিকুল ইসলাম এ ৭ জনকে আসামী করা হয়েছে। এ ঘটনায় জেলা ঝুড়ে সংবাদকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে পিরোজপুর জেলা প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক এবং যমুনা টিভি ও দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের জেলা প্রতিনিথি এসএম তানভীর আহম্মেদ জানান, ওই সব সংবাদ কর্মীদের নামে মামলা দেয়ার কথাটা শুনেছি। বিষয়টি নিয়ে পুলিশ সুপারের সাথে কথা বলতে চেষ্টা করেছি। কিন্তু তিনি ছুটিতে থাকায় তা সম্ভব হয় নি। সংবাদকর্মীদের নামে বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়েরের বিষয়টি দু:খ জনক। তবে তারা যদি রাজনীতির সাথে জড়িত থাকে তাবে তা স্থানীয় রাজনৈতিক ও প্রশাসনের ব্যাপার। একই কথা বলেন প্রেসক্লাবের সভাপতি ও ইত্তেফাকের ষ্টাফ রিপোর্টার মনিরুজ্জামান নাসিম আলী।
এ ব্যাপারে জানতে ইন্দুরকানী থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) মো: এনামুল হক জানান, আমরা কখনোই সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে নই। ওই মামলাটি পুলিশ বাদী হয়ে করে নি। আমরা (পুলিশ) অভিযোগ পেয়েছি। যেহেতু বিষয়টি রাজনৈতিক এবং ওই সব সংবাদকর্মী বিএনপি-জামায়াতের রাজনীীতর সাথে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। সে ক্ষেত্রের আমাদের কিছু করার থাকে না। তবে ওই সব সংবাদকর্মীরা যদি ঘটনার সাথে জড়িত না থাকেন তবে পরবর্তীতে চার্জ শিট দাখিলের সময় তদন্ত করে তাদের নাম বাদ দেয়া হবে।

এ বিষয়ে জানতে ওই মামলার বাদী আবুল বাশারের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, বোমা হামলায় তিনি আহত হয়েছে। তিনি মামলাটির বাদী ঠিকই তবে এ সময় তিনি অসুস্থ থাকায় কাদের আসামী করা হয়েছে তা তিনি জানেন না।

এ বিষয়ে জানতে জেলা পুলিশ সুপারের ব্যবহৃত সরকারী মুঠোফোনে ফোন দিলে তিনি তা কেটে দেন। তাই তার কোন সাক্ষাৎ নেয়া সম্ভব হয় নি।
উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার (০৬ ডিসেম্বর) রাত ১০টার দিকে জেলার ইন্দুরকানী উপজেলার বালিপাড়া বাজারে থাকা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ের পাশে ককটেল বিস্ফোরনের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এইচ এম লাহেল মাহমুদ/ইবিটাইমস 

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »