সুপারস্টার লিওনেল মেসির জাদুকরী ফুটবলে বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার প্রত্যাবর্তন

মেক্সিকোর বিরুদ্ধে কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের সি গ্রুপের একটি গুরুত্বপূর্ণ খেলায় আর্জেন্টিনা  ২-০ গোলে জয়লাভ করে কাতার বিশ্বকাপ ২০২২ এর শিরোপা লড়াইয়ে ফিরে এসেছে

স্পোর্টস ডেস্কঃ গতকাল শনিবার (২৬ নভেম্বর) কাতারের লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে ফিফা বিশ্বকাপের গত ২৮ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক ৮৮,৯৬৬ জন দর্শকের উপস্থিতিতে সি গ্রুপের এই গুরুত্বপূর্ণ খেলাটি অনুষ্ঠিত হয়। অস্ট্রিয়ার জনপ্রিয় দৈনিক Kronen Zeitung জানিয়েছে আর্জেন্টিনাকে প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের হাত থেকে বাঁচিয়েছে জাদুকরী মেসি।

কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের সি গ্রুপের প্রথম খেলায় আর্জেন্টিনা অপ্রত্যাশিতভাবে এশিয়ার দেশ সৌদি আরবের কাছে ২-১ গোলে পরাজিত হয়ে প্রথম গ্রুপ পর্ব থেকেই বাদ পড়ে যাওয়ার হুমকিতে পড়ে। তাই আজকের ম্যাচটি আর্জেন্টিনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। খেলার প্রথম থেকেই আর্জেন্টিনা মেক্সিকোর বিরুদ্ধে চড়াও হয়ে খেললেও খেলার প্রথমার্ধে কোন গোল পায় নি। অন্যদিকে মেক্সিকো মাঝমাঠে ভালো খেললেও আর্জেন্টিনার গোলবারে
একটি শট ছাড়া গোল হওয়ার মতো তেমন কোন শট নিতে পারে নি।

অনেকেই ভাবতে শুরু করছিলেন যে সম্ভবত খেলাটি শেষমেষ গোল শূন্য ড্র এর দিকে ধাবিত হচ্ছে। ঠিক তখনই খেলার ৬৪ মিনিটে রাইট উইং থেকে ডি মারিয়া নিখুঁত পাস দেন লিওনেল মেসিকে। সৌভাগ্যবশত গোলপোস্ট থেকে ২৫ গজ দূরে থাকা মেসি ছিলেন আনমার্কড (অরক্ষিত)। বল পেয়ে মেসি নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বাঁ পায়ের গড়ানো শট ওচোয়াকে ফাঁকি দিয়ে পাশ ঘেষে ঢুকে যায় মেক্সিকোর জালে(১-০)।

মুহুর্তের মধ্যেই আকাশি-নীলের গর্জনে মেতে ওঠে লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়াম। মেসি স্পর্শ করেন আর্জেন্টিনার পরলোকগত সুপারস্টার ডিয়েগো ম্যারাডোনার রেকর্ড। ১ দিন আগেই যার দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী পালন করে ফুটবল বিশ্ব। বিশ্বকাপে দুজনের গোল সংখ্যা সমান ৮টি করে। আর ১টি পেলেই বিশ্বকাপজয়ী কিংবদন্তীকে ছাপিয়ে যাবেন মেসি। মেসি এই বিশ্বকাপে এই পর্যন্ত দুই খেলায়
দুই গোল করেন।

সৌদির বিপক্ষে অঘটনের পর আর্জেন্টিনার প্রয়োজন ছিল একটি জয়। সেটি এলো গ্রুপ ‘সি’ থেকে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই, ম্যাক্সিকোর বিপক্ষে। প্রথম ম্যাচে হারের পর বিশ্বকাপে বাদ পড়ে যাওয়ার শঙ্কায় থাকা আর্জেন্টিনা দারুণভাবে ঘুরে দাড়ালো। মেসি ছাড়া বাকি গোলটি করেছেন ২১ বছর বয়সী এনজো ফার্নান্দেজ,যার জোগান দিয়েছিল দলনেতা সুপারস্টার লিওনেল মেসি।

আর্জেন্টিনার সাথে উত্তর আমেরিকান মেক্সিকো খেলছিলো রক্ষণাত্বক ফুটবল। মেসিরা উপরে উঠতে এলেই শিকার হচ্ছিলেন বাজে ট্যাকলের। ১৮টি ফাউল করেছে মেক্সিকো। তবে কম যায়নি আর্জেন্টিনাও। তারা ১৪ বার ফাউল করেছেন। প্রথমার্ধে আর্জেন্টিনাকে রুখে দিয়েছিল মেক্সিকো। গোল শূন্য ড্রতে বিরতিতে গিয়েছে দুই দল। মেক্সিকান ডিফেন্সে বারবার পরাস্ত হয়ে দিশেহারা দেখাচ্ছিল তাদের। মেসিরা বল হারিয়েছেন মাঝ মাঠেও।

প্রথমার্ধে আর্জেন্টিনা মাত্র ১টি শট নেয়, তাও লক্ষ্যহীন। সবমিলিয়ে শটও ৩টি। আর মেক্সিকোর ৩টি শটের মধ্যে ১টি ছিল অন টার্গেট। বিরতির পর ফিরেও ছন্দহীন মনে হচ্ছিল আর্জেন্টিনাকে। মেসি দারুণ জায়গা থেকে ফ্রি কিক মেরে দেন বাইরে। আর্জেন্টিনা বারবার মেক্সিকান ডিফেন্সে হানা দিতে থাকে। তাতে ৬৪ মিনিটে পেয়ে যায় কাঙ্ক্ষিত গোল।

শেষ বাঁশি বাজার তিন মিনিট আগে আসে দ্বিতীয় গোল। ৮৭ মিনিটে মেসির শট কর্ণার থেকে বাঁ দিক দিয়ে বল আসে ফার্নান্দেজের পায়ে। তিনি গুটিরেজকে ফাঁকি দিয়ে কোনাকুনি তুলে দিয়ে বল জড়ান মেক্সিকোর জালে(২-০)। মেসির পর ২১ বছর বয়সী ফার্নান্দেজ হলেন বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতা।

মেসির ফ্রি কিন ক্ষুরধার না হলেও বিরতির আগে অল্পের জন্য বেঁচে যায় আর্জেন্টিনা। ৪৫ মিনিটে ফ্রি কিক পায় মেক্সিকো। দারুণ একটি শট নেন ভেগা। আর্জেন্টাইন দেয়ালকে ফাঁকি দিয়ে বল যাচ্ছিল জালে। গোলরক্ষক ডান দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে বল নিজের নিয়ন্ত্রণে রেখে দেন। একটু এদিক সেদিক হলেই গোল পেয়ে যেতো মেক্সিকো।

আর্জেন্টিনার এই জয়ে জমে উঠেছে গ্রুপ সির লড়াই। চার দলের সামনেই থাকছে শেষ ষোলোতে ওঠার সুযোগ। ২ ম্যাচ শেষে ৪ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে পোল্যান্ড। ৩ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে আর্জেন্টিনা, সমান পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে সৌদি আরব ও ১ পয়েন্ট নিয়ে চারে আছে মেক্সিকো।

এই গ্রুপ সি তেণআর্জেন্টিনা-পোল্যান্ড ম্যাচে যে জিতবে সরাসরি শেষ ষোলোতে। আর সৌদি আরব-মেক্সিকো ম্যাচে যদি সৌদি জিততে পারে.তাহলে সরাসরি শেষ ষোলোতে যেতে পারবে., আর মেক্সিকো যদি জিতে তাহলে আর্জেন্টিনা-পোল্যান্ডের মধ্যকার ম্যাচের হারা দলের কপাল পুড়তে পারে। মেসিদের সামনে এবার পোলিশ (Poland) বাঁধা।

ফিফার ডিসিপ্লিনিয়ারি কমিটি বা কর্তৃপক্ষ কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের সি গ্রুপের আর্জেন্টিনা বনাম মেক্সিকোর খেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড় হিসাবে আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসি নির্বাচিত করেছেন।

আর্জেন্টিনা একাদশ: ই. মার্টিনেজ – আকুনা, লি. মার্টিনেজ, ওটামেন্ডি, মন্টিয়েল (মোলিনা ৬৩) – ম্যাকঅ্যালিস্টার (প্যালাসিওস ৬৯), রদ্রিগেজ (ফার্নান্দেজ ৫৭), ডি পল – লা। মার্টিনেজ (আলভারেজ ৬৩), মেসি, ডি মারিয়া (রোমেরো ৬৯)।

মেক্সিকো একাদশ: ওচোয়া – আলভারেজ (জিমেনেজ ৬৬), আরাউজো, মোরেনো, মন্টেস, গ্যালার্দো – হেরেরা, গুয়ার্দাদো (গুতেরেজ ৪১), শ্যাভেজ – লোজানো (আলভারাডো ৭৩), ভেগা (অ্যান্টুনা ৬৬ মিনিট)।

কবির আহমেদ/ইবিটাইমস 

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »