শরতের ছুটির পর প্রথম সপ্তাহে অস্ট্রিয়ার স্কুলে করোনা শনাক্ত ২,৩২৬

রাজধানী ভিয়েনার স্কুলে ৭০৭ জন করোনায় আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে

ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ান সংবাদ সংস্থা এপিএ আজ জানিয়েছেন যে, গত ৩ নভেম্বর অস্ট্রিয়ায় প্রায় সপ্তাহ খানেক শরতের ছুটির পর স্কুল খোলার পর পিসিআর পরীক্ষায় এই পর্যন্ত ২,৩২৬ জন করোনায় আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে রাজধানী ভিয়েনার স্কুলেই ৭০৭ জন সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছে।

অস্ট্রিয়ার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, গত ৩ নভেম্বর শরতের ছুটির পর পুন:রায় স্কুল খোলার পর স্কুলে করোনা পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করা নমুনার পিসিআর পরীক্ষায় যে ২,৩২৬ জন করোনার ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন তার মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, রাজধানী ভিয়েনায় ৭০৭ জন, আপার অস্ট্রিয়ায়(OÖ) ৬৬৩ জন, স্টাইরিয়ায়(Stmk.) ১৯৬ জন, ফোরালবার্গে ৪৬ জন এবং বুর্গেনল্যান্ডে ৪৩ টি করোনার ইতিবাচক বা পজিটিভ ফলাফল পাওয়া গেছে। তাছাড়াও গতকাল বৃহস্পতিবার লোয়ার অস্ট্রিয়ায় ৩৮৫ টি কেস পাওয়া গেছে। সালজবুর্গ এবং তিরোল রাজ্যে ৯৮ জন করে  এবং ক্যারিন্থিয়ায়(Kärnten) ৯০ জন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে।

ভিয়েনায়, এটি ক্লাসরুমে নিরাপদ প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করার জন্য শিক্ষা অধিদপ্তর বা অসংখ্য পরিচালকের অনুরোধে ছুটির শেষ দিনে পরিচালিত “অ্যালেস গার্গেলট” প্রোগ্রামের পরীক্ষার সংখ্যাও বিবেচনা করে না। আরও ৪৮১ টি সংক্রমণ রেকর্ড করা হয়েছে – যদিও এই সংখ্যাগুলি সমস্ত নতুন সংক্রমণ নাও হতে পারে, কারণ প্রোগ্রামটি স্কুলের ছাত্ররা আগে আবিষ্কৃত সংক্রমণের পরে “বিনামূল্যে পরীক্ষার” জন্য ব্যবহার করেছে।  স্কুল আবার শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই করোনা সংক্রমণের কারণে মোট ২২ টি ক্লাস বন্ধ হয়ে গেছে, তবে এখনও পূর্বের মতই স্কুলের বাকী ক্লাশ খোলা রয়েছে।

যাই হোক না কেন, ছুটির আগে স্কুলে নিরপদ সপ্তাহের অপারেশনের শেষ সপ্তাহের তুলনায় বৃদ্ধি, যখন প্রতি সপ্তাহে তিনটি পরীক্ষা করা হয়েছিল, তা স্পষ্ট: সেই সময়ে, মোট ১,৪০০ টি পিসিআর পরীক্ষা করা হয়েছিল। ভিয়েনায় (যেখানে সপ্তাহে দুবার পিসিআর পরীক্ষা করা হয়) সেখানে ৪৮০ টি ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া গেছে, তারপরে উচ্চ অস্ট্রিয়া (৩৫০; প্রতি সপ্তাহে একটি পিসিআর পরীক্ষা), লোয়ার অস্ট্রিয়ায় (২০৩), স্টাইরিয়া (১৪৯), সালজবুর্গে (৭২ জন)। ), ক্যারিন্থিয়া (৬০), তিরলে (৫০) এবং বুর্গেনল্যান্ডে (৮ জন)।তবে ফোরালবের্গে এটি শূন্য ছিল, কারণ তখন পর্যন্ত সংক্রমণের কম সংখ্যার কারণে রাজ্যে কোনও দেশব্যাপী পরীক্ষা করা হয়নি।

শরতের বিরতির সময় স্কুল শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংক্রমণের ব্যাপারে শিক্ষামন্ত্রী হাইঞ্জ ফ্যাসম্যান (ÖVP) এক বিবৃতিতে বলেছেন, “যে সব ছাত্র-ছাত্রীরা এখন পজিটিভ পরীক্ষা করেছে তারা শরতের বিরতির সময় সংক্রামিত হয়েছে। স্কুলে নিয়মতান্ত্রিক পরীক্ষা পদ্ধতি তাদেরকে শনাক্ত করেছে এবং এইভাবে সংক্রমণের একটি সম্ভাব্য শৃঙ্খল থেকে আক্রান্তদের পৃথক করা সম্ভব হয়েছে।

স্কুলে নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশ সফলভাবে কাজ করছে এবং সামগ্রিকভাবে মহামারীর বিরুদ্ধে লড়াইয়েও সাহায্য করছে। একই সাথে,শিক্ষামন্ত্রী স্কুলের শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার বিকল্পগুলির সুবিধা নেওয়ার জন্য আবেদন করেছিলেন। যারা এখনও এটি সম্পর্কে চিন্তা করছেন তাদের জন্য, তিনি নতুন ওয়েবিনার সিরিজ “ব্রেকিং দ্য ওয়েভ” সুপারিশ করেছেন, যেখানে বিশেষজ্ঞরা টিকা সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দেয় এবং এইভাবে একটি জ্ঞাত সিদ্ধান্ত নিতে সহায়তা করে।

আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ৯,৩৮৮ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৩২ জন। অস্ট্রিয়ার মত একটি ছোট ও সুশৃন্খল দেশে দৈনিক সংক্রমণের এই সংখ্যা খুবই ভয়াবহ। রাজধানী ভিয়েনায় আজ নতুন করে সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ১,২৯৮ জন।

অস্ট্রিয়ার অন্যান্য ফেডারেল রাজ্যের মধ্যে OÖ রাজ্যে ২,৪৬১ জন, NÖ রাজ্যে ১,৮৪১ জন, Steiermark রাজ্যে ১,১১৩ জন, Salzburg রাজ্যে ৯৫০ জন, Tirol রাজ্যে ৬১৩ জন, Kärnten রাজ্যে ৪৯৪ জন, Vorarlberg রাজ্যে ৩৯৯ জন এবং Burgenland রাজ্যে ২১৯ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী আজ সমগ্র অস্ট্রিয়াতে করোনার প্রতিষেধক টিকা দেয়া হয়েছে মাত্র ১৫,৫৪০ ডোজ এবং এই পর্যন্ত মোট টিকাদানের পরিমাণ ১,১২,২৮,৮১২ ডোজ। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক টিকার সম্পূর্ণ ডোজ গ্রহণ করেছেন মোট ৫৭ লাখ ৪৭ হাজার ৪৭৫ জন,যা দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৬৪,৩ শতাংশ।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮,৬৫,৩৯০ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১১,৪৫১ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ৭,৯১,২৮০ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৬২,৬৫৯ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ৩৫৬ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ১,৮৩১ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

কবির আহমেদ /ইবিটাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »