পোল্যান্ড-বেলারুশ সীমান্তে আরও একজন অভিবাসী প্রত্যাশির মৃত্যুবরণ

এই সীমান্তের জঙ্গলে গত প্রায় ৫ মাসে ১০ জন অভিবাসী প্রত্যাশির মৃত্যুর ঘটনা ঘটল

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স ও এএফপির উদ্ধৃতি দিয়ে ইউরোপে অভিবাসীদের নিয়ে নিউজ পোর্টাল ইনফোমাইগ্রেন্টস এই তথ্য জানিয়েছে। সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী বেলারুশ-পোলিশ সীমান্তে আরো এক অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে৷এই নিয়ে গত গ্রীষ্ম থেকে এখন অবধি সেখানে অভিবাসী মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো দশজনে ৷ সর্বশেষ নিহত ইরাকির মরদেহ সীমান্তের কোন পাশ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে তা নিয়ে চলছে বিতর্ক৷

বেলারুশ থেকে পোল্যান্ডে প্রবেশের চেষ্টার সময় গত ২৯ অক্টোবর এক ইরাকি নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে৷ বেলারুশের সীমান্তরক্ষীদের বিবৃতি এবং ফরাসি বার্তাসংস্থা এএফপির দেয়া তথ্য অনুযায়ী, সীমান্তের পোলিশ অংশ অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে৷ বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছে, পোল্যান্ডের সীমান্তরক্ষীরা ‘‘মৃতের মরদেহ টেনে বেলারুশ সীমান্তে নিয়ে যেতে অন্য অভিবাসীদের বাধ্য করেছে’’৷

তবে, পোলিশ সীমান্তরক্ষীরা দাবি করেছে, ‘‘সীমান্তের পোল্যান্ডের অংশে এরকম কিছু ঘটলে তা সীমান্তরক্ষীদের জানার কথা৷’’অধিকাংশ মরদেহ পোল্যান্ডে পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে। পোলিশ সংবাদপত্র গাজেটা ভেবর্কশা লিখেছে, এখন পর্যন্ত মৃত ১০ অভিবাসীর মধ্যে সাতজনের মরদেহ সীমান্তের পোল্যান্ডের অংশে পাওয়া গেছে৷

ফ্রান্স ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা এএফপি এই বিষয়ে পোল্যান্ডের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কার্যালয়ের কাছে বক্তব্য চাইলেও তার কোন সদুত্তর পাওয়া যায় নি।সংবাদ সংস্থার খবরে বলা হয়েছে সীমান্তে শীত বাড়ায় হাইপোথারমিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন অনেক অভিবাসী।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার কর্মী বা অ্যাক্টিভিস্টরা জানিয়েছেন, পোল্যান্ড এবং বেলারুশ সীমান্তের অধিকাংশ অঞ্চল জঙ্গলে ঘেরা। তাছাড়াও এই অঞ্চলটি একটি অত্যন্ত ঠাণ্ডা এলাকা যা,স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ঝুঁকিপূর্ণ৷অভিবাসীদের মধ্যে কয়েকজন সেখানকার নদী বা জলাবদ্ধ এলাকা পাড়ি দিতে গিয়েও মৃত্যুবরণ করেছেন৷

বাকিরা ক্লান্তি এবং ঠাণ্ডার কারণে মারা গেছেন৷ সীমান্তবর্তী শহরগুলোতে এখন তাপমাত্রা রাতের বেলা শূণ্য ডিগ্রির কাছাকাছি পৌঁছে যায়৷ ফলে জঙ্গল আর খোলা জায়গার পরিস্থিতি যে আরো করুণ তা সহজেই অনুমেয়৷

জার্মানিতে আসছেন অভিবাসীরা, রয়টার্সের এক সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে কিছু অভিবাসী সীমান্ত অঞ্চলে পৌঁছাতে গিয়ে তাদের পায়ের জুতা হারিয়েছেন৷ অনেকের কাছে শীতের কাপড় নেই৷ ফলে তাদের পক্ষে খোলা জায়গায় বা জঙ্গলে দিনের পর দিন টিকে থাকা অত্যন্ত কঠিন ব্যাপার৷ অভিবাসীদের মধ্যে কেউ কেউ হাইপোথারমিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ৷

জার্মানির সংবাদ সংস্থা ডয়েচে ভেলে (DW) জানান, জার্মান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে শুধু অক্টোবরেই পোল্যান্ড সীমান্ত পেরিয়ে ৫ হাজার ২৮৫ জন অবৈধ অভিবাসী জার্মানিতে পৌঁছেছেন যারা বেলারুশ সীমান্ত হয়ে প্রবেশ করেছেন৷ চলতি বছরে এভাবে জার্মানিতে পৌঁছানো মোট অভিবাসীর সংখ্যা ৭ হাজার ৮৩২ জন৷

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সীমান্তে তল্লাশি বাড়িয়েছে জার্মানির পুলিশ প্রশাসন ৷ ফলে প্রতিদিনই বিভিন্ন যানবাহনে ১০ থেকে শতাধিক অভিবাসীর সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে যারা কোনোরকম অনুমতি ছাড়াই জার্মানিতে প্রবেশ করছেন৷ এই সীমান্তে এখনও কোন বাংলাদেশী অভিবাসী প্রত্যাশি আছে কিনা জানা যায় নি।

কবির আহমেদ/ইবিটাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »