শর্তসাপেক্ষে জামিন পেলেন প্রথম আলোর জৈষ্ঠ সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম

বাংলাদেশ ডেস্কঃ বাংলাদেশে অফিসিয়াল সিক্রেক্টস অ্যাক্টের মামলায় প্রথমবারের মতো গ্রেপ্তার হওয়া প্রথম আলো পত্রিকার সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের জামিন দিয়েছেন আদালত। পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকা এবং পাসপোর্ট জমা রাখার শর্তে তাকে জামিন দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের জাতীয় সংবাদ মাধ্যম।

বাংলাদেশ থেকে বৃটিশ সংবাদ সংস্থা বিবিসির সংবাদদাতা জানিয়েছেন যে,রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলি আবদুল্লাহ আবু বলেন, রোজিনা ইসলামের মামলাটি স্পর্শকাতর হলেও আমরা তার জামিনের আবেদন বিবেচনা করার জন্য বলেছি। তবে আমরা বলেছি, পাসপোর্ট জমা রাখতে হবে। আসামী পক্ষ তাকে রাজি হয়েছে।

ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক বাকী বিল্লাহ রোববার এই জামিনের আদেশ দেন। ভার্চুয়াল আদালতে দেয়া এই আদেশের সময় রোজিনা ইসলাম ছিলেন গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে। আদালতে রোজিনা ইসলামের জামিনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী, আমিনুল গনি টিটো, আশরাফ উল আলম, প্রশান্ত কুমার কর্মকার ও ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া। আর রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবদুল্লাহ আবু ও সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর হেমায়েত উদ্দিন খান হিরন।

উল্লেখ্য যে,গত সোমবার সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যান। সেখানে বিকেল তিনটার দিকে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা তাকে একটি কক্ষে আটক করেন। পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। রাত ৯ টার দিকে তাকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। এরপর রাত পৌনে ১২টার দিকে শাহবাগ থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা হয় এবং তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিব শিব্বির আহমেদ ওসমানী বাদী হয়ে করা এই মামলায় রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩৮৯ ও ৪১১ ধারায় এবং অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের ৩ ও ৫ ধারায় অভিযোগ আনা হয়।

এরপর রোজিনা ইসলামকে গত মঙ্গলবার সকাল আটটার দিকে শাহবাগ থানা থেকে আদালতে নেওয়া হয়। ওইদিন বেলা ১১টার পর তাকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে তোলা হয়। পুলিশের পক্ষ থেকে পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করলে আদালত তা নামঞ্জুর করে রোজিনা ইসলামকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন এবং তার জামিন আবেদন শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করা হয়। আদালতের এই আদেশের পর রোজিনা ইসলামকে কারাগারে নেয়া হয়। পরবর্তীতে গত বৃহস্পতিবার রোজিনা ইসলামের জামিন আবেদনের শুনানি শেষে আদালত আদেশের জন্য ২৩ মে দিন ধার্য করেন।

এদিকে বাংলাদেশের দৈনিক পত্রিকা প্রথম আলো জানিয়েছেন যে, তাদের  জ্যৈষ্ঠ সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের জামিন হওয়ার পর আজ রবিবার বিকাল ৪টার পর কারাগার থেকে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। রোজিনা ইসলাম গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী ছিলেন।

মুক্তি পাওয়ার পর রোজিনা ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘সাংবাদিকতা চালিয়ে যাব। সাংবাদিকসহ যারা পাশে ছিলেন, সবাইকে ধন্যবাদ।’

কবির আহমেদ/ ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »