অস্ট্রিয়া খুব দ্রুত স্বাভাবিক যাত্রায় ফিরে আসছে-সরকার প্রধান সেবাস্তিয়ান কুর্জ

অস্ট্রিয়ার সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞরা ঈঙ্গিত দিয়েছেন যে শীঘ্রই দেশে মাস্ক পড়ার বাধ্য-বাধ্যকতা থাকছে না 

ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর(প্রধানমন্ত্রী) সেবাস্তিয়ান কুর্জ (ÖVP) আজ ভিয়েনায় এক সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেছেন। এই সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডাক্তার ভল্ফগ্যাং মুকস্টাইন (Greens) এবং ভিডিও কনফারেন্সে মাধ্যমে অস্ট্রিয়ার ভ্যাকসিন বিশেষজ্ঞ ডা. প্রফেসর হারভিগ কল্লারিটস। সরকার প্রধান ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী এই সম্মেলনের পূর্বে দেশের সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞ ও করোনার টিকা বা ভ্যাকসিন কমিটির এক বিশেষজ্ঞ প্যানেলের সাথে সরকার প্রধানের কার্যালয়ে এক বৈঠকে মিলিত হয়েছিলেন।

চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন,বর্তমানে আমাদের দেশে করোনার সার্বিক পরিস্থিতি খুবই ভালোর দিকে। তিনি জানান অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত প্রায় ৪০ লাখের উপরে করোনার ভ্যাকসিন ডোজ প্রদান করা হয়েছে এবং আমাদের দেশের জনসংখ্যার তিনভাগের একভাগ মানুষ করোনার উভয় ডোজ সম্পন্ন করেছেন। অস্ট্রিয়া একটি পর্যটন সমৃদ্ধ দেশ, তাই আমরা চেষ্টা করছি যত দ্রুত সম্ভব আমাদের পর্যটন শিল্পকে পুনরায় স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে।

তিনি আরও জানান, আমাদের সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন যে, অতি শীঘ্রই আমরা অস্ট্রিয়ায় মুখোশ বা মাস্ক পড়ার বাধ্যকতা প্রত্যাহার করে নিতে পারবো। তিনি জানান আগামী ২৮ মে শুক্রবার সরকার প্রধানের কার্যালয়ে দেশের নীতিনির্ধারক,সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞ এবং রাজ্য গভর্নরদের সাথে এক বৈঠকের পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

সেবাস্তিয়ান কুর্জ আরও জানান,অস্ট্রিয়ায় গত সাত দিনে করোনার সংক্রমণের বিস্তার ক্রমাগত হ্রাসের দিকে। বর্তমানে সবকিছুই খুলে দেওয়া হয়েছে এবং এই ধারা অব্যাহত থাকলে তখন আর বাধ্যতামূলক মাস্ক পড়ার দরকার নাও হতে পারে।

সরকার প্রধান সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন,খুব শীঘ্রই দেশে সকল বয়সের মানুষের জন্য করোনার ভ্যাকসিন নিবন্ধন (রেজিস্ট্রেশন) উন্মুক্ত করা হবে। কুর্জ বলেন, বর্তমানে দেশের তরুণরা তাদের টিকা দেওয়ার জন্য দীর্ঘ প্রতীক্ষায় রয়েছেন। এখন সমস্ত ফেডারেল রাজ্যে সমস্ত বয়সের জন্য টিকা প্রদান সক্রিয় করা উচিত, যাতে যেকেউ আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে টিকা নিতে পারে।

সংবাদ সম্মেলনে অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ভল্ফগ্যাং মুকস্টাইন জানান যে,আমরা মোটামুটি একটি নতুন বিধিবিধানের শেষ পর্যায়ে আছি। আমাদের নতুন নিয়ম অনুযায়ী অস্ট্রিয়ায় সাধারণ অনুশীলনকারী চিকিৎসকরাই যে কোন বয়সের মানুষকে করোনার ভ্যাকসিন প্রদান করতে পারবেন। তাছাড়াও “চিকিত্সকরা তাদের ব্যক্তিগত ঝুঁকি অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে পারেন।”

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও জানান অস্ট্রিয়া বর্তমানে করোনার ভ্যাকসিন ডোজ পর্যাপ্ত পরিমাণে রয়েছে। তিনি জানান, বর্তমানে অস্ট্রিয়ায় প্রতি সপ্তাহে ৪,০০,০০০ লাখ থেকে ৫,০০,০০০ লাখ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ভ্যাকসিন ডোজ আসছে।

তিনি আরও জানান অস্ট্রিয়া ইইউর অনুমোদন পেলে আগামী আগস্ট মাস থেকে ১২ থেকে ১৫ বয়সের শিশুদেরও করোনার ভ্যাকসিন প্রদান করবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও জানান,যারা করোনার ভ্যাকসিন সম্পন্ন করেছেন তারা বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুসারে করোনার সুরক্ষা বজায় রাখতে আগামী শরৎকালে একটি বুস্টার ডোজ নিতে পারবেন।তিনি বলেন,অস্ট্রিয়ার বিভিন্ন রাজ্যে এই বুস্টার ডোজের জন্য ইতিমধ্যেই রসদ সরবরাহের জন্য প্রস্তুতিমূলক কাজ শুরু করা হয়েছে।

অস্ট্রিয়ায় বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রতিষেধক ভ্যাকসিন ৪ টি প্রদান করা হচ্ছে। ভ্যাকসিনগুলি হচ্ছে, ফাইজার ও বায়োনটেক,অ্যাস্ট্রাজেনেকা-অক্সফোর্ড, মোডার্ণা এবং জনসন এন্ড জনসন। অবশ্য স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন যে,অস্ট্রিয়া নতুন করে আর অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন অর্ডার করবে না।

আগামী ১ জুন থেকে অস্ট্রিয়ায় অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ আর দেয়া হবে না। জনসন এন্ড জনসনের শুধুমাত্র এক ডোজ অর্থাৎ জনসন এন্ড জনসনের কোন দ্বিতীয় ডোজ নিতে হবে না।

করোনার গ্রীন পাসের সমালোচনা করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এটি এখনও ইইউর রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের আলোচনার টেবিলে রয়েছে। তবে তিনি আশা করছেন আগামী ১ জুলাই থেকে যারা করোনার ভ্যাকসিন সম্পন্ন করেছেন তারা গ্রীণ পাস পাবেন। ফলে আগামী গ্রীষ্মে ইইউর ভিতরে ভ্রমণে আর কোন প্রতিবন্ধকতা থাকবে না।

টিকা বা ভ্যাকসিন বিশেষজ্ঞ হারভিগ কল্লারিটস সংবাদ সম্মেলনে বলেন,আগামী শরতে করোনার বুস্টার ডোজ কখন প্রদান শুরু করা হবে তার তারিখ এখনও নির্ধারিত হয় নি। তবে তিনি বলেন,প্রস্তুতির উপর নির্ভর করে বুস্টার ডোজ ছয় থেকে নয় মাসের মধ্যে নিলেও চলবে।

তিনি জানান, করোনার ভাইরাস পৃথিবী থেকে একেবারে নির্মূল হবে না। তাই বর্তমানে আপনারা করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণ সম্পন্ন করলেও ভবিষ্যতের নিরাপত্তার জন্য এই বুস্টার ডোজ নিয়ে নিতে পারেন।

আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় নতুন করে সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ৫৬২ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১৯ জন।

রাজধানী ভিয়েনায় আজ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ১২৪ জন। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে OÖ রাজ্যে ৯৬ জন,Steiermark রাজ্যে ৯০ জন,Tirol রাজ্যে ৮৯ জন,NÖ রাজ্যে ৮৬ জন,Kärnten রাজ্যে ৫০ জন,Vorarlberg রাজ্যে ৩৪ জন,Salzburg রাজ্যে ১৬ জন এবং Burgenland রাজ্যে ৯ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী আজ সমগ্র অস্ট্রিয়ায় করোনার ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে ১ লাখ ৬ হাজার ৩৬৯ ডোজ। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক ভ্যাকসিন প্রদান সম্পন্ন করা হয়েছে ৪২ লাখ ৮৪ হাজার ৫৮৪ ডোজ।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬,৩৯,৬১৬ ডোজ এবং এই পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন মোট ১০,৫২৭ জন। করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন মোট ৬,১৯,৭৫৬ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৯,৩৩৩ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ২৫২ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৭৮২ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

কবির আহমেদ /ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »