করোনায় এবছরও ঈদ উৎসব আনন্দ মলিন

নিউজ ডেস্কঃ ঈদুল ফিতর (আরবি: عيد الفطر অর্থাৎ “রোযা ভাঙার দিবস”) ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের দুটো সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবের একটি। দ্বিতীয়টি হলো ঈদুল আযহা।

ইসলামী ধর্মীয় পরিভাষায় ঈদুল ফিতরকে ‍ইয়াউমুল জাএজ‍ (অর্থ: পুরস্কারের দিবস) হিসেবেও বর্ণনা করা হয়েছে। দীর্ঘ এক মাস রোযা রাখা বা সিয়াম সাধনার পর মুসলমানেরা এই দিনটি ধর্মীয় কর্তব্যপালনসহ খুব আনন্দের সাথে পালন করে থাকেন কিন্ত করোনা মহামারীর জন্য অস্ট্রিয়া সহ সারা মুসলিম বিশ্বে গত বৎসরের মতোই এই বৎসর ঈদের দিন নিরানন্দেই কাটাতে হবে। অবশ্য অস্ট্রিয়ায় এই বৎসর এক পরিবারের সাথে অন্য পরিবারের মিলিত হওয়ার অনুমতি আছে।

আগামী দিন ১৩ মে ২০২১ইং বৃহস্পতি বার সৌদি আরব এবং ইউরোপসহ মুসলিম বিশ্বের অধিকাংশ দেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর। করোনার দুর্যোগে গোটা বিশ্ব বিপর্যস্ত। মৃত্যুর মিছিলের মধ্য দিয়ে হাঁটছি আমরা। স্বজন হারানো ব্যাথায় কাতরাচ্ছে দুনিয়া। তারপরও অবিরাম চলেছি এই দুর্যোগ মোকাবেলায়। করোনা মহামারী হয়তো একদিন এই মানুষের কাছেই নতি স্বীকার করবে। ততোক্ষণে আমাদের অনেক কিছু হারাতে হচ্ছে । করোনার সঙ্গে সঙ্গী হয়েই আগামী দুঃসময় পাড় করবো আমরা  প্রিয়জনকে কোনভাবেই কাছাকাছি থেকে জড়িয়ে ধরা যাবে না। করোনা আমাদের এতটাই বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। প্রিয় স্বজনের নিঃশ্বাসকেও আমরা আজ বিশ্বাস করতে পারছি না। তারপরও আমরা শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখেই সবার মঙ্গল কামনা করবো। বিশ্বের সব মানুষের মুক্তির কথা বলবো।

মহামারী করোনাভাইরাসে কাবু গোটা বিশ্ব। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে তাই সামাজিক দূরত্ব মেনে চলায় গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। মানুষের প্রাণ বাঁচাতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে কারফিউ, লকডাউন দেওয়া হয়েছে ঈদের দিনেও। বহু দেশে ঈদের জামাত না করার অনুরোধ ও ফতোয়া দেওয়া হয়েছে। গণপরিবহন ও যান চলাচল বন্ধ থাকায় অনেকেই ফিরতে পারেননি পরিবারের কাছে। বন্ধু ও আত্মীয়ের বাসায় বেড়ানো যাবে না। বন্ধ রয়েছে দেশে দেশে শপিং মল, পর্যটন কেন্দ্র। ঈদ উৎসবের এমন চিত্র অভাবনীয়। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশেই এবারের ঈদ উৎসবের এমন চিত্র। ঘরে বসেই ইবাদত, ঘরোয়া আয়োজনে উৎসবের প্রস্তুতি দেশে দেশে। অস্ট্রিয়ায় ঈদের নামাজের অনূমতি দিলেও মেনে চলতে হবে কঠোর বিধিনিষেধ। প্রতিটি মসজিদে নামাজের সময় সামাজিক দুই মিটার দূরত্ব রেখে নামাজের কাতারে দাঁড়াতে হবে। নাক ও মুখ সম্পূর্ণ ঢাকতে পড়তে হবে বাধ্যতামূলক এফএফপি২ মাস্ক এবং নিজের নামাজের কাপড় বাসা থেকে নিয়ে যেতে হবে। নামাজের পর ঈদের ঐতিহ্যবাহী কোলাকুলি ও হাতে মোছাবা করা যাবে না।

এদিকে অষ্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়নায় বাংলাদেশীদের বড় মসজিদ বাংলাদেশ ইসলামিক সেন্টার বাইতুল মোকাররম এ ঈদের ৪ টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে । ১ম জামাত সকাল ৮ টায়,২য় জামাত সকাল ৯ টায়, ৩য় জামাত সকাল ১০ টায় এবং শেষ জামাত সকাল ১১ টায় ।

অন্যদিকে ভিয়েনার ১০নং ডিসট্রিক্টের বাংলাদেশী মসজিদ বায়তুল মামুর এ ৩ টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে ।  ১ম জামাত সকাল ৮:৩০মি. ২য় জামাত সকাল ৯:৩০ মি এবং ৩য় জামাত সকাল ১০:৩০মি ।

কবির আহমেদ /ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »