নেপালে সংক্রমণ বাড়াচ্ছে ভারতের মিউট্যান্ট ভাইরাস

নেপালের সাথে ভারতের সীমান্ত বন্ধ ঘোষণা

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতে করোনা পরিস্থিতি এখনও ভয়াবহ অবস্থার মধ্যেই আছে। গতকাল বৃহস্পতিবারও দৈনিক সংক্রমণ ৪ লাখের উপরে ছিল এবং মৃত্যুও ছিল ৩ হাজারের উপরে। দক্ষিণ এশিয়ায় ভারতের প্রতিবেশী দেশগুলোতেও এর প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে৷ বিশেষ করে নেপালে ভারতের মিউট্যান্ট ভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় সে দেশের সরকারকে বেশ ভাবনায় ফেলে দিয়েছে। সে কারনে নেপাল সরকার ভারতের সাথে তার সীমান্ত সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করেছে।

নেপাল থেকে আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স, সিএনএন (CNN) জার্মানির ডয়েচে ভেলে (DW) জানিয়েছেন যে,২ কোটি ৮০ লাখ ৬১ হাজার মানুষের দেশ নেপালে করোনা পরিস্থিতি দিনের পর দিন ক্রমশ অবনতি হচ্ছে। প্রতিদিন বাড়ছে সংক্রমণ, বাড়ছে মৃতের সংখ্যা৷ হিমালয়ের দেশে এ পর্যন্ত করোনায় মোট সংক্রমিত হয়েছেন ৩ লাখ ৬৮ হাজার ৫৮০ জন এবং এই পর্যন্ত মৃত্যুবরণ করেছেন মোট ৩,৫২৯ জন।

হিমালয় কন্যা খ্যাত ছোট্ট এই দেশটিতে করোনার প্রথম প্রাদুর্ভাবে তেমন একটা প্রভাব পড়ে নি। তবে বর্তমানে ভারতের এই মিউট্যান্ট ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারনে প্রচন্ড বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে দেশটি। করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট ছড়ানোর আশঙ্কা রোধ করতে অনেক দেশই ভারতের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধ করতে শুরু করেছে৷ প্রতিবেশী দেশগুলো এর পাশাপাশি ভারত সংলগ্ন সীমান্তও বন্ধ করছে৷ নেপালও ইতিমধ্যে ভারতের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ ও সীমান্ত বন্ধ ঘোষণা করেছে।

নেপালি এক পরিসংখ্যান সংস্থা বলছে, কয়েক মাস আগের তুলনায় নেপালে বর্তমানে করোনার সংক্রমণ ৫৭ গুণ বেড়েছে৷ নেপালের হাসপাতাল গুলিতে তাই করোনা রোগীদের প্রচণ্ড উপচে পড়া ভিড়।

নেপালে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির সাথে সাথে মৃত্যুর সংখ্যাও অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় সরকার মৃতদেহ সৎকারের জন্য নেপালি সেনাবাহিনীকে তলব করেছে। নেপালে হিন্দু ধর্মাবলম্বী লোক বেশী বলে দেশটি সরকারীভাবে একটি হিন্দু রাস্ট্র। ভারতের বিহার রাজ্যের সাথে নেপালের বৃহৎ সীমান্ত রয়েছে।

নেপালের প্রচুর নাগরিক ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের রাজধানী মুম্ভাই সহ বিভিন্ন জেলায় কর্মরত আছে।ফলে সেখানে কর্মরত নেপালিদের দ্বারাই ভারতের এই নতুন মিউট্যান্ট ভাইরাস নেপালে ছড়িয়েছে বলে ধারণা করছেন সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞরা।

কবির আহমেদ/ ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »