মহারাষ্ট্রের করোনা হাসপাতালে আগুনে ১৩ আইসিইউ রোগীর মৃত্যু

রাজধানী দিল্লিতে তীব্র অক্সিজেন সঙ্কট

অন লাইন ডেস্কঃ ভারতের করোনার দ্বিতীয় প্রাদুর্ভাবে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ মহারাষ্ট্র রাজ্যের রাজধানী মুম্ভাই থেকে বিভিন্ন ভারতীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা জানান,এই রাজ্যের বিচার জেলার একটি হাসপাতালে আগুনে অগ্নিদগ্ধ হয়ে ১৩ জন করোনায় আক্রান্ত আইসিইউ রোগীর করুন মৃত্যু হয়েছে।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে যে,মহারাষ্ট্রের রাজধানী মুম্ভাই থেকে ৭০ কিলোমিটার দূরে বিরার জেলার বিজয় বল্লভ হাসপাতালে শুক্রবার ভোরে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে হাসপাতালে আগুন লেগে যায়।

শুক্রবার ভোর রাত ৩ টার দিকে এই আগুনের সূত্রপাত ঘটে হাসপাতালের করোনার আইসিইউ ইউনিটে। আগুন লাগার পর পরই তা মুহুর্তের মধ্যেই অন্যান্য ফ্লাটেও ছড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একাধিক ইউনিট এসে প্রায় আড়াই ঘন্টা পর সকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে আগুন নিভাতে সক্ষম হন। আগুনের এই আড়াই ঘন্টার লেলিহান থাবায় ততক্ষণে আইসিইউ-তে থাকা ১৩ জন করোনা রোগাী আগুনে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

এদিকে শুক্রবার ভারতের রাজধানী দিল্লি থেকে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের উদ্ধৃতি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছেন,দিল্লির গঙ্গারাম হাসপাতালের অক্সিজেন শেষ হওয়ার ২ ঘণ্টা পূর্বে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দিল্লি স্বাস্থ্য প্রশাসনের নিকট এসওএস( SOS) বার্তা পাঠিয়েছেন।

হাসপাতালের ডিরেক্টর অজয় ​​সেহগাল বলেছেন, হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫ জন অসুস্থ মানুষের মৃত্যু হয়েছে।  আর মাত্র দুই ঘণ্টার মতো অক্সিজেন আছে আমাদের হাসপাতালে। ইমারজেন্সি ও আইসিইউ-তে ভেন্টিলেটার ও বাইপ্যাপ ঠিকভাবে কাজ করছে না বলে ম্যানুয়ালি তা করা হচ্ছে। আমরা ভয়ঙ্কর সঙ্কটে নিয়মিত হয়েছি। এই হাসপাতালে এখনও ৬০ জন রোগী সংকটাপন্ন অবস্থার মধ্যে আছে। সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী দিল্লি স্বাস্থ্য প্রশাসন গঙ্গারাম হাসপাতালে অক্সিজেন সঙ্কট নিরসনে জরুরী ভিত্তিতে দুইবার অক্সিজেন পাঠিয়েছেন,যা দিয়ে আরও দুইদিন চলা যাবে।

উল্লেখ যে,একদিন আগেই অর্থাৎ বৃহস্পতিবার মহারাষ্ট্রের নাসিক জেলার জাকির হোসেন হাসপাতাল চত্বরে অক্সিজেন ট্যাঙ্কার লিক হয়ে যাওয়ার ফলে অক্সিজেন সরবরাহ ৩০ মিনিট বন্ধ থাকায় ২৩ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছিল। তবে ২১ জন সংকটাপন্ন রোগীকে অন্য হাসপাতালে সরিয়ে নেয়া সম্ভব হয়েছে।

ঘটনার সময় হাসপাতালে মোট ৯০ জন রোগী ভর্তি ছিলেন। আগুন লাগার পর রোগী ও হাসপাতাল কর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকুর।

বর্তমান সময়ে ভারতে করোনার ডাবল মিউট্যান্ট ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব চলছে। গত তিনদিন যাবৎ ভারতে করোনার দৈনিক সংক্রমণ তিন লাখের উপরে এবং দৈনিক করোনায় মৃত্যু আড়াই হাজারের উপরে। বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারতের পশ্চিমবঙ্গে রাজ্যেও করোনার সংক্রমণ অব্যাহত বৃদ্ধি পাচ্ছে।পশ্চিমবঙ্গের স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছেন যে,রাজ্যে বর্তমান করোনার দৈনিক সংক্রমণ তের হাজারের উপরে উঠে গেছে। করোনার এই ঢামাডোলের মধ্যেই এই রাজ্যে নির্বাচন চলছে পাঁচ দফায়। করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় গতকাল কলকাতার হাইকোর্ট নির্বাচনের রোড শো সহ করোনার কিছু কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে নির্দেশনা জারি করেছেন।

কবির আহমেদ /ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »