স্পেনে রেসিডেন্ট কার্ড পাওয়ার নতুন সুযোগ সৃষ্টি হলো

স্পেন : স্পেনে নিয়মিত হওয়ার নতুন সুযোগে সৃষ্টি হলো । আরো সহজে স্পেনের নাগরিত্ব  পাওয়া যাবে ।

গত ২৫ শে মার্চ সুপ্রিম কোর্টের রায়ে নির্দেশ প্রদান করে ,দুই বছর স্পেনে বসবাস করলে ন্যূনতম ছয় মাসের কর্মকাল প্রমানসহ সহজ শর্তে রেসিডেন্ট কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবে । এক্ষেত্রে কোনো কন্ট্রাক্ট এর প্রয়োজন হবে না । ছয় মাসের কম কাজের প্রমান,     ন্যূনতম কাজের ক্ষেত্রে শিথিলযোগ বলে বিবেচিত হবে ।

নতুন এই রায়ের মধ্যে দিয়ে ভোগান্তি ও হয়রানির শিকার থেকে মুক্তি মিলবে হাজার হাজার ডকুমেন্ট প্রত্যাশী প্রবাসীদের । এতে করে রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী ,স্টুডেন্ট ,জব ভিসা,তার্কেটা কুমনিনুটারিও সহ বিভিন্ন ভাবে যারা কাজ۔ করেছেন۔ তারাই এই স্পেন সরকার কর্তৃক সহজীকরণের সুযোগ পাবে ।

কাজের কন্টাক নিয়ে দুর্নীতি অনিয়ম এবং অধিক অর্থ নিয়ে কন্টাক্ট এর ভোগান্তি আর۔হয়রানি থেকে মুক্তি পাবে প্রবাসীরা । পাশাপাশি কমবে ইমিগ্রান্ট প্রত্যাশীদের আবেদনের দীর্ঘসূত্রিতা এবং জটিলতা ।

এছাড়াও স্পেনিশ ল্যাঙ্গুয়েজ কোর্সে অংশ গ্রহণ অনেকটা শিথিল হবে । আইরাইগো লেবরাল (Arrigo Leboral )এর আওতায় এ সুযোগ পাবেন যারা,স্পেনে অবস্থারত দুইবছরের যে কোন ছয়মাস আট ঘন্টা /চার ঘন্টা কর্মকাল দেখাতে সক্ষম হবেন । এতে কোনো কন্ডাক্ট এর  প্রয়োজন হবে না । তবে সাধারণ নিয়মিতিকরণের যে পদ্বতি আররিগো সোশ্যাল( Aarigo Social) আগের মতোই তিন বছর স্পেনে থাকার প্রমান পত্র সহ পুলিশ ক্লিয়ারেন্স,কাজের কন্ডাক্টসহ আৱেদন করতে হবে ।

বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন এবং মানবাঅধিকার সংস্থা দাবি জানিয়ে আসছিল স্পেনে অ্যামনেস্টি ঘোষণা দেয়ার জন্য ।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বিভিন্ন বাধ্যবাধকতা থাকার কারণে অ্যামনেস্টি দেবার ঢালাও  সিদ্ধান্ত নেয়নি স্পেন । যদিও বর্তমান সোসালিস্ট পার্টি নেতৃত্বতাধীন সরকার সব সময় প্রবাসী বান্ধব বলে পরিচিত ।

২০০৫ সালে সহজ শর্তে সাধারণ নিয়মিতিকরণের ঘোষণা দিয়েছিলো, যা ছিল সর্বশেষ ।  তারাও চাইছিলো এরকম কোন পদ্বতিতে সহজ শর্তে দেওয়ার সুযোগ লাভ করুক ইমিগ্রান্ট প্রত্যাশীরা । এক্ষেত্রে ইউরোপ ইউনিয়ন কোন বাধা হিসেবে দাঁড়ালো না । যদিও আরিগো  লেবরাল পদ্বতি চালু ছিলো ২০১২ সাল পর্যন্ত। আইনি জটিলতার কারণে বেশিরভাগ প্রবাসী এ সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি । এবারের সহজীকরণের কারণে তা এখন۔ অনেকটা ডকুমেন্ট প্রত্যাশীদের নতুন দ্বার খুললো । বেসরকারি তথ্যমতে প্রায় দুই লক্ষ ডকুমেন্ট প্রত্যাশী,তার  মধ্যে প্রায় ১০ হাজার বাংলাদেশী রয়েছেন ।

এব্যাপারে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন۔ ইন স্পেনের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান সুন্দর বলেন,অবশই এটি একটি যুগান্তকারী রায়,এতে অনেক ভুক্তভোগী বাংলাদেশি উপকৃত হবে । স্পেন বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি রাসেল হাওলাদার বলেন, দীর্ঘ দিন থেকে যারা আন্দোলন করছে ,তাদের দাবির প্রতি ফলন ঘটলো এই রায়ের মাধ্যমে ।

বকুল খান,বিশেষ প্রতিনিধি/ ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »