অস্ট্রিয়ায় মে মাসে সবকিছু খোলার সিদ্ধান্তে দ্বিমত পোষণ ভিয়েনার মেয়রের

বুর্গেনল্যান্ডের রাজ্য গভর্নরের তীব্র সমালোচনায় দলীয় নেত্রী পামেলার

ইউরোপ ডেস্কঃ ভিয়েনা রাজ্য গভর্নর ও সিটি মেয়র মিখাইল লুডভিগ (SPÖ) আজ শনিবার অস্ট্রিয়ার জনপ্রিয় রেডিও ও নিউজ নেটওয়ার্ক “Ö1″এর সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ফেডারেল সরকারের মে মাসে একই সাথে সবকিছু খুলে দেওয়ার পরিকল্পনাকে তিনি সমর্থন করতে পারছেন না। উল্লেখ্য যে, গতকাল অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জের নেতৃত্বে সরকারের নীতিনির্ধারকরা দেশের অংশীদারদের সাথে এক বৈঠকের পর আগামী মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে একই সাথে সবকিছু খোলার পদক্ষেপের কথা জানিয়েছেন।

ভিয়েনার মেয়র মিখাইল লুডভিগ সরকারকে ঢালাও ভাবে সবকিছু একসাথে না খোলার পরামর্শ দিয়ে বলেন,নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটগুলির পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে মে মাসে সতর্কতার সাথে ধীরে ধীরে এবং কিছু বিধিনিষেধ সহকারে খোলার পদক্ষেপ নিন।

মিখাইল লুডভিগ আমাদের বিশেষ করে ভিয়েনার হাসপাতাল ও আইসিইউর অবস্থা বর্তমানে কিছুটা স্থিতিশীল থাকলেও এখনও বিপদজনক অবস্থাতেই আছে। তিনি বলেন,সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ গতকাল সংস্কৃতি থেকে শুরু করে খেলাধুলা, গ্যাস্ট্রোনমি এবং পর্যটন সমস্ত কিছুই একসাথে খোলার ঘোষণার সাথে পরিস্থিতির উন্নতির পূর্বে আমি সমর্থন করতে পারছি না।

ভিয়েনা রাজ্য গভর্নর মিখাইল লুডভিগ(SPÖ)তার বুর্গেনল্যান্ড রাজ্যের গভর্নর ও সহকর্মী হান্স পিটার ডসকোজিলের (SPÖ) সমালোচনা করে বলেন,পরিস্থিতির উন্নতির পূর্বেই ভিয়েনা ও লোয়ার অস্ট্রিয়ার (NÖ) সাথে আলাপ আলোচনা না করেই হুট করে ১৯ শে এপ্রিল থেকে সবকিছু খোলার সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন।

তবে তিনি বলেন,প্রত্যেকেই তাদের রাজ্যের জন্য দায়বদ্ধ। “আমি ভিয়েনার চলমান লকডাউনটি আরও বর্ধিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি কারণ মানুষের স্বাস্থ্য আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ” গভর্নর ডসকোজিল তার ফেডারেল রাজ্যে উন্নয়নের জন্য দায়ী।  ফেডারেল রাজ্যগুলির জন্য একে অপরের সাথে সংহতি প্রকাশ করা গুরুত্বপূর্ণ হবে বলে মন্তব্য করেছেন লুডভিগ, যিনি ভিয়েনার হাসপাতালে কোনও বুর্গেনল্যান্ডের রোগীকে প্রত্যাখ্যান করতে চান না।

এদিকে অস্ট্রিয়ার প্রধান বিরোধীদল SPÖ এর প্রধান পামেলা রেন্ডি – ভাগনার (SPÖ) শুক্রবার সন্ধ্যায় অস্ট্রিয়ার রাস্ট্রীয় টেলিভিশনে সংবাদ অনুষ্ঠান ZIB2 এ নিজের দলের বুর্গেনল্যান্ড রাজ্যের গভর্নর হান্স পিটার ডসকোজিলের (SPÖ) সমালোচনা করে বলেন,তিনি পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ার পূর্বেই ১৯ এপ্রিল থেকে সবকিছু খুলে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন,যা অনেকটাই আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের মত।

তিনি বলেন,ভিয়েনার মেয়র লুডভিগ যখন “সঠিক এবং প্রয়োজনীয় পথে” যাচ্ছিলেন, তখন ডসকোজিল খুব তাড়াতাড়ি খোলার সিদ্ধান্ত নিয়ে তেমন একটি বুদ্ধিমানের কাজ করেন নি। তিনি জানান,বুর্গেনল্যান্ড রাজ্যের আইসিইউ অর্থাৎ নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের বর্তমান পরিস্থিতি মোটেও সবকিছু খোলার পক্ষে অবশ্যই উপযুক্ত সময় নয়।

পামেলা আরও জানান, বুর্গেনল্যান্ডের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র এখনও রোগীতে পরিপূর্ণ অবস্থায় আছে। গভর্নর ডসোকোজিলকে এই প্রশ্নের জবাব দিতে হবে: “তিনি কি আগত সপ্তাহ এবং মাসগুলিতে সমস্ত বুর্গেনল্যান্ডের নিরাপদ নিবিড় চিকিৎসা কেন্দ্রে যত্নের প্রয়োজন হতে পারে কি অথবা না ?

আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ২,০৮৮ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ২৭ জন।

রাজধানী ভিয়েনায় আজ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৫৭৭ জন। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে NÖ রাজ্যে ৪৮৪ জন,OÖ রাজ্যে ৪৭২ জন,Tirol রাজ্যে ২৩৬ জন,Steiermark রাজ্যে ১৯৪ জন, Kärnten রাজ্যে ১৬৯ জন,Salzburg রাজ্যে ১৬৮ জন, Vorarlberg রাজ্যে ৮২ জন এবং Burgenland রাজ্যে ৩৪ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী আজ সমগ্র অস্ট্রিয়ায় একদিনেই করোনার ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে ৬৯,০১৮ ডোজ। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে ২৪,০৩,৪৭৬ ডোজ। অস্ট্রিয়ায় সাধারণত বয়স্ক মানুষদের বায়োনটেক ও ফাইজারের ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। আর বাকিদের অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও মডার্নার ভ্যাকসিন প্রদান করা হচ্ছে।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫,৯১,৩৪৭ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন মোট ৯,৮৭০ জন। করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন মোট ৫,৫২,৬১৯ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ২৮,৮৫৮ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ৫৪৮ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

কবির আহমেদ /ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »