বাংলাদেশে চলছে লকডাউন, গণপরিবহন না থাকায় ভোগান্তিতে কর্মজীবিরা

ঢাকাঃ করোনা সঙ্কট মোকাবেলায় সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী সোমবার, ৫ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশে শুরু হযেছে ৭ দিনের লকডাউন। গনপরিবহন ও শপিংমল বন্ধের বিধিনিষেধ রয়েছে সরকারের ঘোষণায়।

লকডাউনের প্রথম দিনে রাজধানী ঢাকার সড়কগুলোতে গণপরিবহন না থাকলেও সিএনজি, প্রাইভেট কার,মোটরসাইকেল চলছে পুরোদমে। গণ পরিবহন বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন অফিসগামী অসংখ্য মানুষ।

চরম ভোগান্তির কথা জানাতে গিয়ে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা রেহানা আক্তার বলেন, গণপরিবহন বন্ধ করে অফিস খোলা রেখে লকডাউনের কোনো মানে নেই।এতে ভোগান্তি ছাড়া কোনো উপকার হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বাবুল সরকার নামে আরেকজন বলেন, কিছুটা পথ হেটে আবার রিকশায় করে কর্মস্থলে পৌঁছেছেন তিনি। পরিবহন না পাওয়ায় সময়মতো অফিসে যেতে পারছেন না।৷

সাধারণ মানুষের অভিযোগ সব কিছু খোলা রেখে শুধু গণপরিবহন বন্ধ রেখে এই লকডাউনে দূর্ভোগ বেড়েছে। মানুষের এমন ভোগান্তির দিকে নজর দিতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান এসব ভুক্তভোগীরা।

এদিকে, গণপরিবহন চালু না থাকায় রিকশা, সিএনজি অতিরিক্ত ভাড়া দাবি করছে বলেও অভিযোগ সাধারণ মানুষের।

লকডাউনের কারনে রাজধানীর মহাখালী, যাত্রাবাড়ী ও গাবতলী বাসটার্মিনালে থেকে দূর পাল্লার বাস ছেড়ে যায়নি। বন্ধ ছিল রেল ও লঞ্চ যোগাযোগও।

তবে, অর্ধেক জনবল দিয়ে নিয়মিত অফিস কার্যক্রম পরিচালনা করছে সরকারি সব প্রতিষ্ঠান। তবে, জনবলের  কমিয়ে শিফটিং চালুর বিষয়টি মানেনি বেশিরভাগ বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

উল্লেখ্য, করোনা সংক্রমন ও মৃত্যু বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশে শনিবার ৭ দিনের লকডাউন ঘোষণা দিয়েছে সরকার। আজ (সোমবার) থেকে তা চলমান থাকবে আগামী শনিবার পর্যন্ত। প্রয়োজনে লকডাউন আরো বাড়তে পারে এমন আভাসও দিয়েছেন সরকার সংশ্লিষ্টরা।

ইবিটাইমস/আরএন

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »