অস্ট্রিয়ায় করোনার তৃতীয় প্রাদুর্ভাবের শুরু-স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ভিয়েনায় জরুরী অপারেশন ব্যতীত সকল অপারেশন স্থগিত ঘোষণা

ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার (গ্রিনস) আজ ভিয়েনায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে অস্ট্রিয়ায় করোনা মহামারীর তৃতীয় প্রাদুর্ভাব শুরুর কথা জানিয়েছেন। তিনি দেশে করোনার সংক্রমণের অব্যাহত বৃদ্ধিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

তিনি জানান,সংক্রমণ বৃদ্ধির ফলে আমাদের হাসপাতাল ও আইসিইউর উপর এখন পুনরায় চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আইসিইউতে ভর্তি আছেন প্রায় ৪০০ জনের কাছাকাছি রোগী। গত এক সপ্তাহে এই বৃদ্ধির পরিমাণ শতকরা  ১৪% শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার সাংবাদিক সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, হ্যাঁ, ইউরোপের অনেক দেশের মত আমরাও করোনার তৃতীয় তরঙ্গের ভিতর প্রবেশ করেছি। তিনি আজকের  সংক্রমণ ৩,৫১৫ এর কথা উল্লেখ করে বলেন,এই সংখ্যা খুবই উদ্বেগজনক। এটি কোনও তাত্পর্যপূর্ণ বৃদ্ধি নয়, তবে একটি লিনিয়ার যা খুব ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। যদি এই সংখ্যাগুলি এভাবে চলতে থাকে তবে এটি একটি “সম্পূর্ণ উদ্বেগজনক পরিস্থিতির” সৃষ্টি হতে পারে আগামী মাসে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার আরও জানান,আগামী সোমবার সরকার প্রধানের কার্যালয়ে দেশের সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞ,৯ টি রাজ্যের গভর্নর এবং জাতীয় সংসদের বিরোধীদলের নেতৃবৃন্দের সাথে পরামর্শ ও আলোচনার পর দেশের করোনা পরিস্থিতির পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আনস্কোবার দেশে করোনার পরীক্ষা এবং ভ্যাকসিন প্রদানে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

তিনি জানান,দেশে এখন করোনার দৈনিক পরীক্ষা সাড়ে চার লাখের কাছাকাছি আর দেশের ১২ লাখ মানুষকে এই পর্যন্ত করোনার ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। এই ভ্যাকসিন গ্রহণকারীদের মধ্যে শতকরা ১১.৫% শতাংশ কমপক্ষে একবার ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। তিনি আরও জানান, বর্তমানে অস্ট্রিয়ায় করোনার ভ্যাকসিন বা টিকাদান কর্মসূচি অত্যন্ত সফলভাবে এগিয়ে চলেছে।

তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন,ইস্টারের পর দৈনিক করোনার ভ্যাকসিন প্রদান চারগুণ বৃদ্ধি করা হবে। তিনি আরও জানান এপ্রিল, মে এবং জুন মাসে প্রায় ছয় মিলিয়ন করোনার ভ্যাকসিন ডোজ অস্ট্রিয়ায় আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। জুনের শেষ দিকে / জুলাইয়ের শুরুতে সাধারণ সকলেই করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে পারবেন। ফলে আশা করা যাচ্ছে সেই সময়ে দেশের দুই তৃতীয়াংশ মানুষের করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণ সম্পন্ন হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আনস্কোবার অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিন সম্পর্কিত ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সি (ইএমএ) এর সুস্পষ্ট নিরাপদের স্বীকৃতি প্রদান সম্পর্কেও সন্তুষ্ট, যার অর্থ অস্ট্রিয়াতে এটি ভ্যাকসিন প্রদান অব্যাহত থাকবে।

আজ সকালে অস্ট্রিয়ার প্রধান বিরোধীদল সোস্যাললিস্ট পার্টি অস্ট্রিয়া (SPÖ) এর প্রধান ডা. পামেলা রেন্ডি-ভাগনার অস্ট্রিয়ার জনপ্রিয় রেডিও Ö1 এর সকালের জার্নালে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, অস্ট্রিয়ায় করোনার সংক্রমণের বিস্তার পুনরায় বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারকে পুনরায় অতি শীঘ্রই একটি শক্ত লকডাউন ঘোষণার জন্য অনুরোধ করছি। গত বুধবার রাজধানী ভিয়েনার  ১০ নাম্বার ডিস্ট্রিক্টের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনেক শিশু শিক্ষার্থীর করোনা পজিটিভ সনাক্তের পর অভিভাবকদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। আজও ভিয়েনার একাধিক স্কুলে শিশুর করোনা পজিটিভ সনাক্ত হওয়ায় কর্তৃপক্ষ ঐ সকল স্কুল ২ সপ্তাহের জন্য স্কুল ছুটি ঘোষণা করেছেন বলে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছেন। গতকাল ভিয়েনা রাজ্য প্রশাসন থেকে ঘোষণা করা হয়েছে, যে স্কুলে ২ জন শিক্ষার্থী করোনার পজিটিভ সনাক্ত হবে সে স্কুল কমপক্ষে ২ সপ্তাহের জন্য অনতিবিলম্বে বন্ধ করা হবে তবে অন লাইন স্কুল চলবে ।

আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৩,৫১৫ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৪২ জন। গতকাল বৃহস্পতিবার অস্ট্রিয়ার করোনা কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে অস্ট্রিয়ার Vorarlberg রাজ্যকে লাল জোন থেকে কমলা জোনে স্থানান্তরিত করেছেন। কারণ হিসাবে বলা হয়েছে গত এক সপ্তাহ যাবৎ এই রাজ্যের সংক্রমণের বিস্তার হ্রাস পেয়েছে এবং হাসপাতাল ও আইসিইউ ব্যবস্থা সুরক্ষিত আছে। বাকী ৮ রাজ্যকে অব্যাহত করোনার  বিপজ্জনক লাল জোনেই রাখা হয়েছে। রাজধানী ভিয়েনায় আজ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৮৭৭ জন। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে NÖ রাজ্যে ৭৫১ জন,OÖ রাজ্যে ৫৫৬ জন, Steiermark রাজ্যে ৪৯৯ জন,Salzburg রাজ্যে ২৭৬ জন,Tirol রাজ্যে ২৩৬ জন,Kärnten রাজ্যে ১৬৩ জন, Burgenland রাজ্যে ১০৬ জন এবং Vorarlberg রাজ্যে ৫১ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫,০৮,০৯৬ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন মোট ৯,০২৪ জন। করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন মোট ৪,৬৮,২৭৫ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩০,৭৯৭ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ৩৯৭ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ১,৮৩৪ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

কবির আহমেদ/ ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »