অস্ট্রিয়ায় ইইউর(EU)বাহিরে নিজস্ব উদ্যোগেও করোনার ভ্যাকসিন সংগ্রহ করবে

ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর(প্রধানমন্ত্রী) সেবাস্তিয়ান কুর্জ ইসরাইলে এক সরকারী সফরে যাওয়ার প্রাক্কালে অস্ট্রিয়ান সংবাদ সংস্থার(এপিএ) সাথে এক সাক্ষাৎকারে একথা জানান।

সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন,আমরা এখন থেকে করোনার ভ্যাকসিনের জন্য আর ইউরোপীয় ইউনিয়নের উপর অতিমাত্রায় নির্ভর করবো না। তিনি অস্ট্রিয়ার করোনার ভ্যাকসিন সংগ্রহের নতুন কৌশলের কথা জানিয়েছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের করোনার ভ্যাকসিনের অনুমোদনের গতি খুবই মন্থর।

তিনি ইসরাইলের সাথে অস্ট্রিয়ার নতুন মিউটেশন ভাইরাসের প্রতিরোধের ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও তৈরী নিয়ে আলোচনা করতে ইসরাইল সফরে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন। পৃথিবীর মধ্যে বর্তমানে ইসরাইলেই সবচেয়ে বেশী করোনার ভ্যাকসিন প্রদান সম্পন্ন করা হয়েছে। ইসরাইল তার দেশের অর্ধেকেরও বেশী মানুষের শরীরে করোনা প্রতিরোধের ভ্যাকসিনের উভয় ডোজই প্রদান সম্পন্ন করেছে। তাই সরকার প্রধান এখন ইইউর বাহিরেও ইসরাইলের সাথে ব্যক্তিগত করোনার ভ্যাকসিন সরবরাহ ও নিজ দেশে তৈরী করতে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সেবাস্তিয়ান কুর্জ এপিএ কে আরও বলেন,অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক এবং তথাকথিত “প্রথম মুভার গ্রুপ” এর সদস্যরা ভবিষ্যতে আর ইউরোপীয় ইউনিয়নের উপর নির্ভর করবে না। এখন থেকে আমরা ইসরাইলের সাথে করোনার এই দ্বিতীয় প্রান্তিকে মিউটেশন ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রতিরোধে নতুন ভ্যাকসিন তৈরী ও গবেষণায় যৌথভাবে কাজ করার কথা জানিয়েছেন তার সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে।

সেবাস্তিয়ান কুর্জ জানান, অস্ট্রিয়ার জন্য এখনও আরও প্রায় ৩০ মিলিয়ন করোনার ডোজ দরকার। সেবাস্তিয়ান কুর্জ আক্ষরিক অর্থে বলেন,”সুতরাং আমাদের আরও মিউটেশন ভাইরাসের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে এবং দ্বিতীয় পর্বের ভ্যাকসিন তৈরীর জন্য আর ইইউর উপর নির্ভর করা উচিত নয়।” ইসরাইল সফরের পূর্বে অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান আজ মঙ্গলবার শীর্ষস্থানীয় দেশীয় ওষুধ সংস্থাগুলির প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক করবেন বলে কথা রয়েছে।

কুর্জ বলেন যে, ইইউর মাধ্যমে প্রবেশাধিকার “মূলত সঠিক ছিল, তবে ইএমএ (ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সি, নোট) ভ্যাকসিনগুলির অনুমোদনের প্রক্রিয়ার গতি খুব ধীর এবং ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থাগুলির ডেলিভারি বা সরবরাহের ক্ষেত্রেও বাধা রয়েছ। ফলে আমাদের এখন আমাদের নিজেদের স্বার্থেই বিকল্প ব্যবস্থাও করে রাখতে হবে।

অস্ট্রিয়ান সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞদের মতে,দেশের জনসংখ্যার দুই তৃতীয়াংশ, অর্থাৎ অস্ট্রিয়াতে ছয় মিলিয়ন মানুষকে আগামী বছরগুলিতে বার্ষিক টিকা দিতে হবে। এদিকে লন্ডন ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছেন যে,ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু সোমবার বলেছেন যে,তিনি অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ ও ডেনিশ প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেদারিকসেনের সাথে “ভ্যাকসিন উৎপাদনের সহযোগিতা” নিয়ে আলোচনা করবেন।

রয়টার্স আরও জানান,ইসরাইল গত বৎসরের অর্থাৎ ২০২০ সালের ১৯ শে ডিসেম্বর থেকে নিজ দেশেই করোনার ভ্যাকসিন উৎপাদন করছে এবং এই পর্যন্ত দেশের জনসংখ্যার প্রায় ৫৪% শতাংশ মানুষের করোনার উভয় ডোজ প্রদান সম্পন্ন করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ড রাজ্যের বাল্টিমোরে অবস্থিত জন হফকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্বের করোনার সেন্ট্রাল ডাটা অনুযায়ী আজ ইসরাইলের করোনায় নতুন করে সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ১,৮৯৯ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১৯ জন। ইসরাইলে এই পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৭,৮১,৮৫৭ জন এবং মোট মৃত্যুবরণ করেছেন ৫,৭৭৯ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩৯,১৯০ জন। বর্তমানে ইসরাইলে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসিইউতে আছেন ৭২৯ জন।

কবির আহমেদ /ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »