বাংলাদেশ পুলিশের খ্যাতিমান সাবেক ডিআইজি কুতুবুর রহমান চলে গেলেন না ফেরার দেশে

নিউজ ডেস্কঃ দেশের জনবান্ধব পুলিশ কর্মকর্তা বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক ডিআইজি কুতুবুর রহমান পাড়ি দিয়েছেন না ফেরার দেশে।

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার ভোর চারটায় রাজধানীর উত্তরাস্থ বাসায় বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেছেন দেশপ্রেমিক এই সাবেক পুলিশ অফিসার (ইন্না লিল্লাহে …. রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তিনি বহু আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

মরহুমের জানাজা ১৮ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে এগারটায় রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সের এসআই শিরু মিয়া মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাগণ, পুলিশ সদস্যগণ এবং মরহুমের আত্মীয়-স্বজন অংশ নেন।

বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক ডিআইজি কুতুবুর রহমানের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) বেনজির আহমেদ। আইজিপি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান।

আইজিপি এক শোক বার্তায় বলেন- জনাব কুতুবুর রহমান পুলিশে এক লিজেন্ড ছিলেন।তিনি তাঁর কর্তব্যনিষ্ঠা ও দায়িত্বশীলতার গুণে সাধারণ মানুষের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিলেন।মানুষ তাঁকে তাদের হৃদয়ের মণিকোঠায় স্থান দিয়েছিলেন।

জনাব কুতুবুর রহমান ১৯৩৯ সালের ২৬ নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া_জেলায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

তিনি ক্যাডেট এসআই হিসেবে ১৯৬১ সালে তদানীন্তন পুলিশ বাহিনীতে যোগদান করেন। নিজের পেশাদারিত্ব, দক্ষতা ও যোগ্যতা দিয়ে তিনি ১৯৯৪ সালে ডিআইজি পদে পদোন্নতি লাভ করেন। ১৯৯৭ সালে তিনি সিআইডি থেকে অবসর নেন।

কুতুবপুর রহমান কে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করতে গিয়ে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন ঢাকা মেট্রো সাউথ এর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন,  চাকরি জীবনে তাঁর ন্যায়পরায়নতা ও সততা  ছিল প্রশ্নাতীত। একজন আদর্শ পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে তিনি সাধারণ মানুষের হৃদয়ে তাদের অত্যন্ত আপনজন হিসেবে স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছিলেন। বাংলাদেশ পুলিশ চিরদিন তাঁকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে।

তিনি আরো বলেন, প্রতিটি পুলিশ সদস্যের কাছে অনুকরণীয় ও অনুসরণীয় হয়ে থাকবেন তিনি। তাঁর মৃত্যুতে বাংলাদেশ পুলিশ একজন অভিজ্ঞ কর্মকর্তাকে হারালো।

রিপন শান, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক /ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »