লালমোহনে জেলে পূণর্বাসনের চাল পাচ্ছে মৃতরা

লালমোহন,ভোলা: ভোলার লালমোহন পৌরসভার জেলেদের পূণর্বাসনের জন্য সরকার কর্তৃক বরাদ্দকৃত চাল উত্তোলণ হচ্ছে মৃত ব্যক্তির নামে। তবে এসব চাল উত্তোলণের বিষয়ে জানেনা বলে জানিয়েছে মৃতের পরিবার। পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে ১০৮ জন নিবন্ধিত জেলের মধ্যে ৯৮ জন জেলের নামে বরাদ্দ আসে। সূত্র জানায়, এদের মধ্যে কয়েকজন মৃত্যুবরণ করলেও তাদের টিপসইয়ের মাধ্যমে মাস্টার রুলে চাল উত্তোলন দেখিয়েছে লালমোহন পৌরসভা।

পৌর ১নং ওয়ার্ডের মৃত শাহে আলমের ছেলে জানান,বাবা মারা গিয়েছেন দুই বছর আগে, তবে তার নামে কে বা কারা চাল উত্তোলন করছে, তা আমাদের জানা নেই। একই ওয়ার্ডের নিবন্ধিত জেলে মৃত আবুল কালামের ছোট ভাই নান্নু জানান, ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে প্রায় তিন বছর আগে। তার পরিবার যেহেতু অন্যত্র থাকে, তাই তার নামের চাল আনার সুযোগ নাই। এছাড়াও পৌরসভার নিবন্ধিত জেলেদের মাঝে সময়মত চাল বিতরণ না করা,কম দেয়াসহ প্রকৃত জেলেদের বাদ দিয়ে মনগড়া তালিকা প্রকাশসহ রয়েছে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ।

 

এদিকে গত বৃহস্পতিবার পৌরভবনের স্টোররুম থেকে পরিত্যক্তবস্থায় ২০ বস্তা চাল উদ্ধার করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল নোমানের পরিচালনাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত। পরে ওই চাল গুদামে হেফাজতপূর্বক তা কোন বরাদ্দের আওতায় এবং কেন পরিত্যক্তবস্থায় ছিল, তা তদন্তের মাধ্যমে বের করতে ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় সোমবার সকালে উপজেলা মৎস্য অফিসার আবদুল কুদ্দুসের নের্তৃত্বে তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে তদন্ত কর্মকর্তাগণ। এসময় পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের নিবন্ধিত জেলেরা দীর্ঘদিন চাল না পাওয়া এবং কম দেয়া নিয়ে তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ তুলে ধরতে চাইলে বিষয়টি তাদের আওতায় নেই বলে জানিয়ে দেন তদন্ত কর্মকর্তারা।

এ ব্যাপারে লালমোহন পৌরসভার মেয়র এমদাদুল ইসলাম তুহিন বলেন, মৃত ব্যক্তিদের নামে চাল উত্তোলনের বিষয়টি আমার জানা নেই। স্টোর রুম থেকে উদ্ধার হওয়া চালগুলো জেলেদের। তবে বিতরণকালে চিকিৎসাধীন থাকায় তা সময়মত বিতরণ করা যায়নি বলে জানান তিনি।

সালাম সেন্টু /ইবি টাইমস

 

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »