ঝালকাঠিতে ভূমি ও গৃহহীন পরিবারে মধ্যে মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে গৃহ হস্তান্তর বিষয় প্রেস ব্রিফিং

ঝালকাঠিঃ মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ঝালকাঠি জেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীন ১২২১টি পরিবারকে গৃহ নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। আগামী ২৩ জানুয়ারি এই কর্মসূচির আওতায় সারা দেশে ৬৬ হাজার পরিবারকে গৃহ নির্মাণ তৈরী করে দিয়ে ১টি বিশ্ব ব্যাপি রেকর্ড সৃষ্টি হচ্ছে। এই পরিবার গুলো ঘরের সাথে আরও ২ শতাংশ করে জমি পাবেন। ঝালকাঠি জেলায়  ৮ কোটি ১০ লক্ষ ৫৪ হাজার টাকা বরাদ্ধের আওতায় ৪৭৪টি পরিবারের জন্য গৃহ নির্মাণ করা হচ্ছে।

ঝালকাঠি জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের অধীন ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান  কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২টায় জেলা প্রশাসক মোঃ জোহর আলী ঝালকাঠি জেলা গৃহ নির্মাণ কার্যক্রমের উপর প্রেস ব্রিফিং করেন।

২৩ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ৯টায় বাংলাদেশের সকল উপজেলায় একযোগে ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে এর শুভ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রেস ব্রিফিং অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(রাজস্ব) এসএম ফরিদ উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। ঝালকাঠি জেলার ৪টি উপজেলার মধ্যে ৪৭৪টি বরাদ্ধকৃত অর্থায়নের মধ্যে ২৩ জানুয়ারি নির্মিত ২৩০টি ঘর হস্তান্তর হবে। অবশিষ্ট গৃহ নির্মাণের কাজ চলছে । ১ লক্ষ ৭১ হাজার টাকা ব্যায়ে প্রতিটি ঘর টিকসই করে নির্মান করা হচ্ছে । এই প্রকল্পে সুবিধাভোগীদের বিদ্যুত সংযোগ ও নাম জারী ব্যয় সরকার বহন করবে।

৪টি উপজেলার মধ্যে সদর উপজেলায় বরাদ্ধকৃত অর্থ দিয়ে ৫১টি, নলছিটি উপজেলায় ৪০টি, রাজাপুর উপজেলায় ৩৩৩টি, ও কাঠালিয়া উপজেলায় ৫০টি গৃহ নির্মাণ করা হচ্ছে। বতর্মানে ঝালকাঠি সদর উপজেলায় ৬৫টি, নলছিটি উপজেলায় ৪০টি, রাজাপুর উপজেলায় ৭৫টি ও কাঠালিয়া উপজেলায় ৫০টি পরিবারের গৃহ হস্তান্তর করা হবে।

ঝাকাঠি জেলায়া ভূমিহীন ও গৃহহীন ১২২১টি পরিবারে তালিকার মধ্যে ঝালকাঠি সদর উপজেলায় ১৮১টি পরিবার, নলছিটি উপজেলায় ৩৮৫টি পরিবার, রাজপুর উপজেলায় ৬০১টি পরিবার ও কাঠালিয়া উপজেলায় ৫৪টি পরিবার তালিকা ভুক্ত হয়েছে। প্রশাসন খাস জমি উদ্ধার করে প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানেরা পর তা অনুমোদন করা হচ্ছে।

বাধন রায় /ইবি টাইমস

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »