যুক্তরাজ্যে আশঙ্কাজনক হারে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ

এপ্রিলের পর আজ একদিনে হাজারের উপরে মৃত্যুবরণ

অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ যুক্তরাজ্যে লকডাউনের কঠোরতার বিধিনিষেধ ৩১ মার্চ পর্যন্ত বর্ধিতের পরিকল্পনা করছে । যুক্তরাজ্যের রাজধানী লন্ডনে করোনার সংক্রমণের বিস্ফোরণ ঘটছে বলে সংবাদ মাধ্যমে বলা হচ্ছে। নতুন বৎসরের শুরুতেই এখন লন্ডনের বাসিন্দাদের মধ্যে প্রতি ৩০ জনের মধ্যে ১ জন করোনায় আক্রান্ত। যদিও লন্ডনে নতুন করে শক্ত লকডাউনের বিধিনিষেধ আজ ৬ জানুয়ারী থেকে কার্যকর হয়েছে। শহরটিতে বর্তমানে লোকসংখ্যার আনাগোনা বেশ কমে গেছে।

ব্রিটিশ পরিসংখ্যান সংস্থা “ONS” জানিয়েছেন বৃটেনে করোনার দ্বিতীয় তরঙ্গে এই পর্যন্ত নতুন করে ১,২ মিলিয়নেরও বেশী মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বর্তমানে নতুন বৎসরের শুরুতে সমগ্র বৃটেনে গড়ে প্রতি ৫০ জনের মধ্যে ১ জন করোনায় আক্রান্ত। এর মধ্যে শুধুমাত্র লন্ডনে প্রতি ৩০ জনের মধ্যে ১ জন করোনায় আক্রান্ত। এর NOS এর মতে লন্ডন এখন ইউরোপীয় রাজধানী গুলির মধ্যে কোভিড-১৯ হটস্পট হিসাবে পরিণত হচ্ছে।

বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সংসদে জোর দিয়ে বলেছেন যে লকডাউন বা বিধিনিষেধ ৩১ শে মার্চ পর্যন্ত এখনও সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয় নি,তবে আলাপ আলোচনা চলছে। তিনি এও বলেছেন একটি স্থিতিশীল, নিয়ন্ত্রিত এবং ফ্যাক্ট-ভিত্তিক রূপান্তর সক্ষম পরিস্থিতি সৃষ্টি না হওয়া পর্যন্ত লকডাউন অব্যাহত থাকবে। প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন লন্ডন সহ সমগ্র বৃটিশ জনগণকে জরুরী প্রয়োজন ব্যতীত ঘর থেকে বের হতে বারণ করেছেন।

তিনি এর কারণ ব্যাখ্যা করে বলেন, প্রাথমিকভাবে ঘরে বসে থাকাও গুরুত্বপূর্ণ, যাতে করোনার ভ্যাকসিনগুলির প্রভাব যাতে নষ্ট না হয়ে যায়। ইতিমধ্যে সমগ্র যুক্তরাজ্যে ১,৩ মিলিয়নেরও উপরে মানুষ করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে নিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী জোর দিয়ে আরও বলেন,যে “গত বৎসরের করোনার” অভিজ্ঞতার পরে যত দ্রুত সম্ভব ঝুঁকিতে থাকা সমস্ত লোককে টিকা দেওয়ার জন্য দেশ এখন “স্প্রিন্ট” এর মধ্যে রয়েছে। তিনি বলেন, “আমরা যদি আমাদের জনগণের পক্ষে এই দৌড় প্রতিযোগিতা জিততে চাই তবে আমাদের টিকাদান সেনাকে একটি প্রধান সূচনা দিতে হবে। “এবং তাই আমাদের আরও একবার বাড়িতে থাকতে হবে, (স্বাস্থ্য পরিষেবা) এনএইচএসকে রক্ষা করতে হবে এবং জীবন বাঁচাতে হবে।”

সংসদের সন্ধ্যায় নিষেধাজ্ঞার(কারফিউ) বিষয়ে ভোট দেওয়া উচিত। এই অনুসারে, লোকেরা কেবল কেনাকাটা করতে, কাজ করতে বা ডাক্তারের কাছে বাসা ছেড়ে চলে যেতে পারবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং অপ্রয়োজনীয় ব্যবসা বন্ধ, বিনোদনমূলক ক্রীড়া অব্যাহত নিষিদ্ধ থাকবে।

আজ যুক্তরাজ্যে নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৬২,৩২২ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১,০৪১ জন। এই পর্যন্ত সমগ্র যুক্তরাজ্যে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৮,৩৬,৮০১ জন এবং সর্বমোট মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৭,৩৪৬ জন। করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন ১৩,৪৫,৮২৪ জন।

এদিকে আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ২,৪৬৯ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৬৮ জন। রাজধানী ভিয়েনায় আজ সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৪৪৩ জন। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে OÖ রাজ্যে ৫০২ জন, NÖ রাজ্যে ৪৫১ জন,Steiermark রাজ্যে ৩৮২ জন,Salzburg রাজ্যে ২১০ জন,Tirol রাজ্যে ২০০ জন,Vorarlberg রাজ্যে ১১৯ জন,Burgenland রাজ্যে ৮২ জন এবং Kärnten রাজ্যে ৮০ জন।

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »