গ্রীসের শরণার্থী উদ্বাস্তু শিশুদের পুনর্বাসনের জন্য অস্ট্রিয়ার সরকারের SOS(Kinder Dorf) গঠনের সিদ্ধান্ত

ভিয়েনা থেকে,কবির আহমেদঃ গতকাল অস্ট্রিয়ার প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার ভ্যান ডের বেলেন, ভিয়েনার মেয়র মিখাইল লুডভিগ এবং ভিয়েনার আর্চবিশপ কার্ডিনাল ক্রিস্টোফ শোনব্রুনের জোড়ালো আবেদনে সাড়া দিয়েছেন অস্ট্রিয়ান সরকার। অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলেকজান্ডার শ্যাচলেনবার্গ আজ এক টুইট বার্তায় জানান,অস্ট্রিয়ান সরকার সেখানে মানবেতর জীবনযাপনকারী শিশুদের জন্য অস্ট্রিয়ান সরকার উদ্বিগ্ন। তাই অস্ট্রিয়ান সরকার সেখানে জরুরী ভিত্তিতে সাহায্যের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান,গ্রীস সরকারকে গ্রীসের লেসবোস দ্বীপে প্রায় ৫০০ শত শিশু শরণার্থীদের জন্য অস্ট্রিয়ান সরকারের অর্থায়নে জরুরী ভিত্তিতে একটি SOS শিশুপল্লী গঠনের অনুরোধ করেছেন। অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস নোটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলেকজান্ডার শ্যাচলেনবার্গ (ÖVP) উদ্ধৃতি দিয়ে জানান,এই সিদ্ধান্ত অস্ট্রিয়ার কেন্দ্রীয় সরকারের। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এই SOS শিশুপল্লী বা চিলড্রেনস ভিলেজ ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসাবে দায়িত্ব দিয়েছেন এলিজাবেথ হাউজারকে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী সন্তুষ্ট প্রকাশ করে বলেন,এর ফলে আমরা দ্রুত এবং সুনির্দিষ্টভাবে শরণার্থী শিবিরে শিশুদের জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে পারবো এবং তাদের দৈনন্দিন জীবনযাত্রাকে আরও শিশু-বান্ধব করে তুলতে অবদান রাখতে পারবো। তিনি আরও বলেন, “দ্রুত এবং বিশেষভাবে বাচ্চাদের এবং পরিবারগুলিকে সহায়তা করা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ধরে নিচ্ছি যে আমরা আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই কাজ শুরু করতে সক্ষম হব।

প্রথমত, এই যত্ন কেন্দ্রটি শিশুদের একটি নিরাপদ জায়গা হবে। এই পল্লীতে শিশুদের সাথে সাথে তাদের পরিবারকেও দেখাশোনা করতে হবে। শিশুদের জন্য মনো-সামাজিক সহায়তা এবং শিক্ষাগত সুযোগের পাশাপাশি পিতামাতাকেও পরামর্শ দেওয়া হবে। “সামাজিক কর্মী, শিক্ষা ও মনোরোগ বিশেষজ্ঞরাও এসওএস চিলড্রেনস ভিলেজগুলিতে দায়িত্ব পালন করবেন। “প্রকল্পটি যাচাই করার পরে, গ্রীক কর্তৃপক্ষ এসওএস চিলড্রেনস ভিলেজগুলির জন্য এবং অস্ট্রিয়ানদের নতুন সহায়তার জন্য একটি ডে কেয়ার সুবিধা অনুমোদন করেছে,” এতে বলা হয়েছে। অভিবাসন সঙ্কটের সময়ে অস্ট্রিয়া ইতিমধ্যে গ্রিসের সাথে সংহতি প্রকাশ করেছে।

ইউনাইটেড হাইকমিশনার ফর রিফিউজি (ইউএনএইচসিআর) ইতিমধ্যে কেবলমাত্র ২০২০ সালে বিদেশী দুর্যোগ তহবিল থেকে ত্রিশ মিলিয়ন ইউরো অনুদান মঞ্জুর করেছে। গত ৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ সালে গ্রীসের লেসবোস দ্বীপের মোরিয়া উদ্বাস্ত শিবিরে আগুন লাগার ফলে বেশিরভাগ শরণার্থী শিবির ধ্বংস হয়ে যায়।আগুন লাগার পর পরই অস্ট্রিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় ২ হাজার লোকের জন্য ত্রাণ সরবরাহ ছাড়াও আইওএম (অভিবাসনের জন্য আন্তর্জাতিক সংস্থা) এর জন্য দুই মিলিয়ন ইউরোও দান করেছেন। এই অর্থ দিয়ে গত বসন্তে ১৮১ টি ঘর ও Sanitary Container স্থাপন করা হয়েছে। এই সহায়তা সরবরাহগুলি সমালোচনার কারণও হয়েছিল কারণ মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, তাদের কমপক্ষে কিছু অংশ কখনও তাদের গন্তব্যে পৌঁছায়নি। চাইল্ড কেয়ার প্রকল্পটিও বিতর্কিত,কারণ এর বাস্তবায়ন দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্প, তবে শরণার্থী শিবিরের পরিস্থিতি বর্তমানে শীতকালীন আবহাওয়ার কারণে বিপর্যয়কর হয়ে পড়েছে।

EuroBanglaTimes

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »